খেলাধুলাহাইলাইটস

বাংলাদেশের চ্যালেঞ্জ নিতে প্রস্তুত ব্ল্যাকউড

sportওয়ানডে সিরিজে বাংলাদেশের কাছে হোয়াইটওয়াশ হয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সাদা বলের ক্রিকেটের হতাশা কাটিয়ে এবার লাল-পোশাকে ফিরতে মুখিয়ে আছে সফরকারীরা। মূল লড়াইয়ে বাংলাদেশের স্পিন শক্তির চ্যালেঞ্জ নিতে প্রস্তুত ওয়েস্ট ইন্ডিজ। এক ভার্চুয়াল সংবাদসম্মেলনে তেমনটাই জানালেন দলটির ক্রিকেটোর জার্মেইন ব্ল্যাকউড। বাংলাদেশি বোলারদের ওপর আধিপত্য রেখে সফল হতে চান ব্ল্যাকউড। এ জন্য তিনি সদ্য শেষ হওয়া ভারত-অস্ট্রেলিয়ার মধ্যকার টেস্ট সিরিজ থেকে অনুপ্রেরণা নিচ্ছেন। ব্রিসবেন টেস্টের প্রসঙ্গ টেনে ক্যারিবিয়ান এই ব্যাটসম্যান বলেন, ‘ভারত-অস্ট্রেলিয়ার সিরিজ আমি দেখেছি। চতুর্থ ইনিংসে (শেষ টেস্টে) যখন এক ঘণ্টা বাকি আছে, আমি নিজেকেই বলছিলাম, পন্ত টিকে থাকলে ভারত জিতে যাবে। আমার মনে হয়, আমাদের দুজনের ব্যাটিংয়ের ধরন একই। সে রানের পেছনে ছোটে এবং বোলারদের চাপে রাখে। আমিও একইভাবে ব্যাট করি।’

শুধু তাই নয়, ক্রিকেটে ভালো করতে বিরাট কোহলির পরামর্শও নিয়েছেন তিনি, “সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিরাট কোহলির সঙ্গেও কয়েকবার কথা হয়েছে আমার। শেষবার যখন ক্যারিবিয়া সফরে গেল ভারত, জ্যামাইকায় অতিরিক্ত ফিল্ডারের দায়িত্ব পালন করেছিলাম। ম্যাচ শেষে অল্প একটু আলাপ হয়েছিল তাঁর সঙ্গে। তাঁকে বলেছিলাম, ‘আমার অনেক ফিফটি, কিন্তু সেঞ্চুরি একটি। সে বলল, ওই সেঞ্চুরিতে কতগুলো বল খেলেছিলে? বললাম, ২১২টির মতো। সে বলল, ‘এই তো। কিছু সময় উইকেটে কাটালেই রান করতে পারবে।’ ওই আলোচনার পর আমি নিজেকে বলেছি, যদি ২০০-৩০০ বল খেলতে পারি, আমার যে খেলার ধরন, তাতে যেকোনো প্রতিপক্ষের বিপক্ষে এবং যেকোনো জায়গায় রান করতে পারি।”

এরপর বাংলাদেশে সফল হওয়ার মানসিকতা নিয়ে ক্যারিবীয় তারকা বলেন, ‘এখানকার উইকেট খুব ধীরগতির। মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকতে হবে আমাকে, কারণ টেকনিক্যালি খুব বেশি কিছু করার সুযোগ এখন নেই। মানসিকভাবে আমি জানি, উইকেট খুবই মন্থর হবে এবং স্পিন করবে। মানসিকভাবে যখন আমি প্রস্তুত, তখন আমার সব ভালো। সবকিছু তখন আপনাআপনি ঠিক হয়। নেটে ভালো ব্যাটিং করছি। এখন মাঠেও সেটি বয়ে নিতে চাই। মাঠে নেমে খেলতে তর সইছে না আমার। বেশ অনেকদিন হয়ে গেল বাংলাদেশে আছি, তাই খেলতে মুখিয়ে আছি।’

এমন আরো সংবাদ

Back to top button