নির্বাচনহাইলাইটস

তৃতীয় ধাপে ৮৭ উপজেলায় ভোটগ্রহণ চলছে

ভোটগ্রহণ চলছেঘূর্ণিঝড় রিমালের তাণ্ডবের পর আজ বুধবার (২৯ মে) তৃতীয় ধাপে দেশের ৮৭টি উপজেলায় ভোটগ্রহণ চলছে। ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে ১৬ উপজেলায় এবং বাকিগুলোতে ব্যালটের মাধ্যমে সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়, যা বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে চলবে। তৃতীয় ধাপে ১১২ উপজেলায় ভোট হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু মৃত্যুজনিত ও মামলার কারণে ধাপ পরিবর্তন হয়েছে দুটি উপজেলার, আর পিরোজপুরের ভান্ডারিয়ার তিন পদের সবাই বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হওয়ায় এবং ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে ২২ উপজেলার ভোট স্থগিত হওয়ায় এই ধাপে ৮৭ উপজেলায় ভোট হবে। এই ধাপে চেয়ারম্যান পদে একজন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে চারজন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে সাতজনসহ মোট ১২ জন বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হয়েছেন।

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রতীকে চেয়ারম্যান পদে ভোট করার সুযোগ থাকলেও স্থানীয় সরকারের এ নির্বাচনে দলীয় প্রতীক বা মনোনয়ন দেয়নি ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। ফলে, আওয়ামী লীগ নেতারা নির্বাচন করছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে। অন্যদিকে বিএনপির অল্প কিছু নেতার স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে লড়লেও, দলটি উপজেলা পরিষদের ভোট বর্জন করেছে।

নির্বাচন কমিশনের (ইসি) দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, তৃতীয় ধাপে মোট এক হাজার ১৫২ জন প্রার্থী ভোটের লড়াইয়ে রয়েছেন। এর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ৩৯৭, ভাইস চেয়ারম্যান ৪৫৬ এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২৯৯ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ৫৬টি পৌরসভা ও ৮৪১টি ইউনিয়নের দুই কোটি ৮ লাখ ৭৫ হাজার ১৮৪ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। নির্বাচনে ভোটকেন্দ্র রয়েছে সাত হাজার ৪৫০টি। এর মধ্যে দুর্গম এলাকার ৪১৪টি কেন্দ্রে গতকাল রাতেই ব্যালট পেপারসহ নির্বাচনি সরঞ্জাম পাঠানো হয়েছে। বাকি সাত হাজার ৩৬টি কেন্দ্রে আজ ভোরেই এসব সরঞ্জাম পাঠানো হচ্ছে।

নির্বাচনে মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে মোট বিজিবি মোতায়েন থাকবে ২৯৯ প্লাটুন। ভোটকেন্দ্রে মোট পুলিশ সদস্য মোতায়েন থাকবে ২৯ হাজার ৯৫৮ জন, মোবাইল টিমে মোট পুলিশ সদস্য মোতায়েন থাকবে সাত হাজার ৭৯৪ জন, স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে মোট পুলিশ সদস্য মোতায়েন থাকবে তিন হাজার ৩৬৪ জন। সর্বমোট পুলিশ সদস্য মোতায়েন থাকবে ৫৯ হাজার ২১৯ জন। মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে মোট র‌্যাব মোতায়েন থাকবে ২৩০টি টিম। ভোটকেন্দ্র এবং মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে মোট আনসার সদস্য মোতায়ন থাকবে এক লাখ ৪০ হাজার ৬৬৯ জন। নির্বাচনে স্বাভাবিক এলাকার ভোটকেন্দ্রে পুলিশ, আনসার, ভিডিপি, গ্রাম পুলিশ, চৌকিদার, দফাদারসহ মোট ১৭ জন সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। আর গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে ১৮ থেকে ১৯ জন সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। বিশেষ এলাকার (পার্বত্য ও দুর্গম এলাকা) সাধারণ কেন্দ্রে ১৯ জন ও গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে ২০ থেকে ২১ জন সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন।

নির্বাচন উপলক্ষে ভোটগ্রহণের জন্য নির্ধারিত দিবসের পূর্ববর্তী মধ্যরাত অর্থাৎ ২৮ মে দিনগত মধ্যরাত ১২টা থেকে ২৯ মে দিনগত মধ্যরাত ১২টা পর্যন্ত ট্যাক্সি ক্যাব, পিকআপ, মাইক্রোবাস ও ট্রাক চলাচলে নিষেধাজ্ঞা থাকবে। ৮৭টি উপজেলায় তিনদিনের জন্য মোটরসাইকেল চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এক্ষেত্রে গত সোমবার মধ্যরাত থেকে পরবর্তী ৭২ ঘণ্টা মোটরসাইকেল চলাচল বন্ধ থাকবে। ভোটের পরিবেশ নিয়ন্ত্রণে রাখতে মাঠে নামানো হয়েছে র‌্যাব, বিজিবি, পুলিশসহ অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। নির্বাচন অপরাধ আমলে নিয়ে সংক্ষিপ্ত বিচার কাজ পরিচালনায় মাঠে রয়েছেন বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেট ও আচরণ বিধি প্রতিপালনে নিয়োজিত করা হয়েছে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

সাংবাদিকদের আরেক প্রশ্নের জবাবে ইসি আলমগীর বলেন, ‘আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা, নির্বাচন পরিচালনার সঙ্গে জড়িত সংশ্লিষ্টরা এবং কমিশন খুব কঠোর অবস্থানে আছে। অতএব আমরা মনে করি না, সহিংসতা করে কেউ পার পাবে। যারা নিজেদের ভালো চাইবেন তারা সহিংসতা করতে চাইবেন না, এটাই স্বাভাবিক।’

বিকেল তিনটা বা তার আগে খুব কম সংখ্যক ভোট কাস্ট হয়। ওই সময়ে ১০, ১২ বা ১৫ শতাংশ ভোট পড়ে। কিন্তু, ৪টা নাগাদ ভোটগ্রহণ শেষে কেন্দ্রীয়ভাবে যখন ফলাফলটা আসে তখন শতাংশটা বেড়ে যায়। জনশ্রুতি যেটা থাকে, হয়তো কমিশন ওখান থেকে ভোটের হার বাড়িয়ে দেওয়া হয়। বিষয়টি নজরে আনলে এই নির্বাচন কমিশনার বলেন, ‘এটি একেবারেই এবসার্ট। যদি ১ শতাংশ ভোটও পড়ে তাহলেও কমিশন হ্যাপি। আমাদের কঠোর নির্দেশ, ভোটার যদি একজন আসে কোনো কেন্দ্রে ওই একটি ভোটেই হবে। দুইটা দেখানোর কোনো সুযোগ নেই। ভোট বাড়ানো বা কমানোর কোনো সুযোগ নেই। কেউ যদি এ কাজ করে এবং তা যদি প্রমাণ হয়, তার বিরুদ্ধে আমরা কঠিন ব্যবস্থা নেব।’ তৃতীয় ধাপের নির্বাচনে তিন হাজার ২৭৭ জন পর্যবেক্ষককে অনুমোদন কমিশন। নির্বাচন কমিশনে নিবন্ধিত ১৫টি পর্যবেক্ষক সংস্থার কেন্দ্রীয়ভাবে ২২৯ জন ও স্থানীয়ভাবে তিন হাজার ৪৮ জন পর্যবেক্ষককে এ নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করবেন। আগামী ৫ জুন চতুর্থ ধাপের ভোট অনুষ্ঠিত হবে।

এমন আরো সংবাদ

Back to top button