অর্থনীতিহাইলাইটস

চট্টগ্রাম বন্দরে পৌঁছেছে জেট ফুয়েলের চালান

jetগত ২৯ ডিসেম্বর শেষ হয়ে যায় বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের (বিপিসি) স্বাভাবিক সরবরাহযোগ্য জ্বালানি জেট এ-১ ফুয়েল। বিভিন্ন ডিপোয় উড়োজাহাজের জ্বালানি মজুদ শেষ হয়ে যাওয়ায় অগ্রাধিকার ভিত্তিতে রেশনিং ও ডেডস্টক ফিল্টারিং করে পরিস্থিতি কিছুটা হলেও সামাল দিয়েছে বিপিসি। শুক্রবার চট্টগ্রাম বন্দরে জেট ফুয়েল নিয়ে একটি জাহাজ নোঙর করায় উড়োজাহাজের জ্বালানি নিয়ে সংকট আপাতত কমে এসেছে। বিপিসি সূত্রে জানা গেছে, দেশে জেট ফুয়েলের তীব্র সংকটের মুখে ২৯ ডিসেম্বর দুপুর ১২টা ৪৮ মিনিটে সিঙ্গাপুর থেকে এমটি কুই চি নামের একটি জাহাজ চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরে পৌঁছে। সংকটের কারণে শিপিং লাইন ও জাহাজে ই-মেইলের মাধ্যমে গতি বাড়িয়ে গন্তব্য চট্টগ্রাম বন্দরে পৌঁছাতে অনুরোধ জানানো হয়েছিল। পাশাপাশি পূর্ব থেকে অবস্থান নেয়া লাইটারেজ জাহাজ সেগুলো সংগ্রহ করে প্রধান প্রধান ডিপো ও বিমানবন্দরে নিয়ে রওনা হয়।

চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরে পৌঁছার পর ইন্সপেকশন ও আনুষ্ঠানিকতা শেষে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন ডিপোয় জ্বালানি পৌঁছাতে অন্তত দুইদিন সময়ক্ষেপণ হলেও এক্ষেত্রে অগ্রিম ও বিশেষ ব্যবস্থার কারণে সময় লেগেছে দেড় দিনেরও কম। জাহাজটি পৌঁছার আগেই দ্রুত সময়ে ওই জাহাজ থেকে জেট ফুয়েল খালাসে পদক্ষেপ নেয় বিপিসি। এজন্য বিপণনকারী প্রতিষ্ঠান পদ্মা অয়েল কোম্পানি লিমিটেডকে বিশেষ দায়িত্ব দেয় বিপিসি।

জানা গেছে, চট্টগ্রাম বন্দরে দুপুরে পৌঁছার পর বিকাল সাড়ে ৪টায় জাহাজটি থেকে লাইটারেজ জাহাজে জ্বালানি খালাস কার্যক্রম শুরু হয়। এরপর জেট ফুয়েল নিয়ে লাইটারেজ জাহাজ রওনা দিয়ে গতকাল বিকাল সাড়ে ৪টায় গোদনাইলে পৌঁছে। সেখান থেকে জরুরি ভিত্তিতে কুর্মিটোলা ডিপোয় জেট ফুয়েল সংগ্রহ করা হয়। এর আগে অনানুষ্ঠানিকভাবে বিভিন্ন এয়ারলাইনসকে দেশের বাইরে থেকে জ্বালানি নিয়ে আসারও অনুরোধ জানানো হয় পদ্মা অয়েলের পক্ষ থেকে।

জানতে চাইলে বিপিসির পরিচালক (বিপণন) অনুপম বড়ুয়া  বলেন, ‘চট্টগ্রাম বন্দরে জেট ফুয়েলবাহী জাহাজ পৌঁছানোর পর অগ্রাধিকার ভিত্তিতে খালাস করে গোদনাইল ডিপোয় নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সেখান থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা নাগাদ (শনিবার) কুর্মিটোলায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। জেট ফুয়েলের সংকট মোকাবেলায় আরো বেশ কয়েকটি জাহাজ চট্টগ্রামের পথে রয়েছে। জেট ফুয়েলসহ অন্যান্য জ্বালানি সংকট দূর করতে বিপিসি বিশেষ পদক্ষেপ নিয়েছে।’

পদ্মা অয়েলের বিপণন বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, জেট ফুয়েলের তীব্র সংকটের কারণে পদ্মা অয়েল বিপিসিকে তাগাদা দেয়ার পাশাপাশি উড়োজাহাজ কোম্পানিগুলোকে বিদেশ থেকে জ্বালানি নিয়ে বাংলাদেশে আসার ‘নোটিস টু এয়ারম্যান’ দেয়ার চিন্তাভাবনা করেছিল। ২৮ ডিসেম্বর বিষয়টি বিপিসির মাধ্যমে মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হলেও সেটি নাকচ করে দেয়া হয়। যদিও পরে দেশীয় এয়ারলাইনস কোম্পানিগুলোকে মৌখিকভাবে এ নির্দেশনা দেয়া হয়। যাতে সংকটকালীন অন্যান্য বিদেশী এয়ারলাইনসকে জেট ফুয়েল সীমিত আকারে সরবরাহ করা সম্ভব হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিপিসির শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে দায়িত্বশীল এক এভিয়েশন কর্মকর্তা।

পেট্রো চায়নার ১১ হাজার ২১১ টন জেট ফুয়েল ও ২৩ হাজার ৭৪৩ টন ডিজেল ছাড়াও ইউনিপ্যাকের সরবরাহ করা জ্বালানি ভর্তি এমটি নর্ড ম্যাজেস্টিক নামের একটি জাহাজ ২২ হাজার ৪৩৫ টন জেট ফুয়েল ও ৯ হাজার ৮৬৭ টন ডিজেল নিয়ে চট্টগ্রাম বন্দরে পৌঁছেছে। অন্যদিকে ভিটলের সরবরাহ করা ৩৬ হাজার ৭৭৭ টন ডিজেল নিয়ে এমটি ম্যারিটাইম গ্রাসিয়াস নামের আরেকটি জাহাজ চট্টগ্রাম বন্দরে পৌঁছেছে। এসব জ্বালানি সংগ্রহ দ্রুততর করতে বিশেষ ব্যবস্থা নিয়েছে বিপিসি।

এমন আরো সংবাদ

Back to top button