অর্থনীতিপ্রযুক্তিহাইলাইটস

ডলার সংকটে ফোরজি ও ফাইভজি কার্যক্রম সম্প্রসারণ করতে পারছে না অপারেটররা

 ডলার সংকটে ফোরজি ও ফাইভজি কার্যক্রম সম্প্রসারণ করতে পারছে না অপারেটররা ডলার সংকটের কারণে সেলফোন অপারেটররা ফোরজি ও ফাইভজির কার্যক্রম সম্প্রসারণ করতে পারছে না। অন্য সব খাতের মতো সেলফোন অপারেটরদেরও আমদানি ব্যয় বেড়েছে। সর্বশেষ প্রান্তিকে বেড়েছে মূলধনি ব্যয়। একই সঙ্গে বেড়েছে বৈদেশিক মুদ্রার বিনিময় হারজনিত ক্ষতি। বাড়তি এ চাপে শ্লথ হয়ে পড়েছে বিদ্যমান নেটওয়ার্ক রক্ষণাবেক্ষণ ও ফোরজির সম্প্রসারণকাজ। এমন পরিস্থিতিতে আগামী বছর ফাইভজির বাণিজ্যিক কার্যক্রম চালুর কথা থাকলেও তা পিছিয়ে যাবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

খাতসংশ্লিষ্টদের দাবি, দেশের সিংহভাগ এলাকাই ফোরজি সেবার আওতায় নিয়ে এসেছেন তারা। এক্ষেত্রে স্থাপিত টাওয়ারের আওতাধীন এলাকা ও জনগোষ্ঠীকে বিবেচনায় নেয়া হয়েছে। তবে মানসম্পন্ন সেবা দেয়ার প্রয়োজনে নিয়মিতভাবে নেটওয়ার্ক উন্নয়ন করতে হয় তাদের। একাধিক টাওয়ারের মধ্যবর্তী স্থানে নেটওয়ার্ক দুর্বল বা অনুপস্থিত থাকতে পারে (নেটওয়ার্ক পকেট), আবার জনবহুল এলাকায় নেটওয়ার্কের ওপর বাড়তি চাপ পড়ে। এসব ক্ষেত্রে নতুন করে টাওয়ার বা ই-নোড-বি স্থাপনের প্রয়োজন হতে পারে। দেশের বাইরে থেকে আনতে হয় প্রয়োজনীয় সব যন্ত্রাংশ।

অপারেটরদের সূত্রে জানা গিয়েছে, ডলার সংকটে মূলধনি যন্ত্রপাতি আমদানিতে নতুন করে ঋণপত্র (এলসি) খুলতে পারছে না তারা। আগের এলসির বিপরীতে আসা যন্ত্রাংশ সরবরাহ থাকায় এখনো নেটওয়ার্ক উন্নয়ন সম্ভব হচ্ছে। তবে পরিকল্পনা অনুযায়ী নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণকাজ সেভাবে করা যাচ্ছে না। এ পরিস্থিতিতে অনেক অপারেটরই সেবার মানোন্নয়নে আমদানিনির্ভরতা কমাতে বিকল্প খুঁজছে।

ডলারের মূল্যবৃদ্ধির প্রভাবে তৃতীয় প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) বৈদেশিক মুদ্রা লেনদেনে গ্রামীণফোনের লোকসান হয়েছে প্রায় ৩৭ কোটি ২১ লাখ টাকা। আগের বছরের একই সময়ে অপারেটরটি এ খাতে ৮ কোটি ৭৪ লাখ টাকার বেশি মুনাফা করেছিল। রবি আজিয়াটা চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে বৈদেশিক মুদ্রার বিনিময় হারজনিত কারণে ১২৯ কোটি ৪৮ লাখ টাকা লোকসান গুনেছে, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১৫ কোটি ৭৮ লাখ টাকা।

ডলার সংকট ও বৈশ্বিক অর্থনৈতিক অস্থিতিশীলতার কারণে ফাইভজির বাণিজ্যিক কার্যক্রম নির্ধারিত পরিকল্পনা অনুযায়ী বাস্তবায়ন সম্ভব হবে না বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। গত বছরের ১২ ডিসেম্বর পরীক্ষামূলকভাবে দেশের ছয়টি স্থানে ফাইভজি সেবা চালু করে রাষ্ট্রায়ত্ত সেলফোন অপারেটর টেলিটক বাংলাদেশ লি.। ফাইভজির এসব সাইটের মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশ সচিবালয়, জাতীয় সংসদ ভবন এলাকা, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, বঙ্গবন্ধু স্মৃতিসৌধ, সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধ ও গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়াড বঙ্গবন্ধুর সমাধিস্থল। চলতি বছরের মধ্যে টেলিটকের ২০০টি সাইটে ফাইভজি নিশ্চিত করার পরিকল্পনা রয়েছে। শীর্ষ অপারেটর গ্রামীণফোনও পরীক্ষামূলকভাবে ফাইভজি নেটওয়ার্ক চালু করে। ২৬ জুলাই ঢাকা ও চট্টগ্রামে সফলভাবে ফাইভজি ট্রায়াল পরিচালনা করেছে অপারেটরটি। রবি আজিয়াটা ফাইভজির ট্রায়াল পরিচালনা করেছে ২৮ সেপ্টেম্বর। ঢাকা ও রংপুরে পরীক্ষামূলকভাবে এ সেবা কার্যক্রম পরিচালনা করে তারা। পরীক্ষামূলক ফাইভজি চালুর সময় খাতটির নীতিনির্ধারকরা জানিয়েছিলেন, চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে ফাইভজি চালুর পরিকল্পনা রয়েছে তাদের। আর আগামী বছর ফাইভজির বাণিজ্যিক সেবা ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষ্যের কথা বলা হয়। অনুযায়ী প্রস্তুতিও চলছিল অপারেটরদের। নিলামের মাধ্যমে তরঙ্গ বরাদ্দ পায় তারা। কিন্তু বর্তমান বাস্তবতায় যথাসময়ে এ পরিকল্পনা বাস্তবায়ন নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

ফোরজি নিয়ে মিশ্র অভিজ্ঞতার কথা জানান বেসরকারি শীর্ষ একটি অপারেটরের গ্রাহক রাজধানীর মিরপুরের বাসিন্দা মামুনুর রশীদ। তিনি বলেন, ‘ফোরজি নেটওয়ার্ক রয়েছে, হ্যান্ডসেটে সেটির নির্দেশক চিহ্নও দেখা যায়। কিন্তু বাসার একপ্রান্ত থেকে অন্যপ্রান্তে গেলেই তা চলে যায়। বাসায় ফোরজি নিয়ে এমন ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে প্রায়ই। যদিও গুলশানের অফিসে এ সেবা পাওয়া যায় নিরবচ্ছিন্নভাবে।’

চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে মূলধনি ব্যয় বেড়েছে বেসরকারি তিন অপারেটরেরই। এ প্রান্তিকে রবি আজিয়াটার মূলধনি ব্যয় দাঁড়িয়েছে ৫৬০ কোটি টাকা, যা আগের প্রান্তিকের তুলনায় ১৪ দশমিক ৯ শতাংশ বেশি। বাংলালিংকের মূলধনি ব্যয় চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্তিক শেষে দাঁড়িয়েছে ৪৭৬ কোটি ৩০ লাখ টাকা। আগের প্রান্তিকে এর পরিমাণ ছিল ১০০ কোটি ৬০ লাখ টাকা। তবে গ্রামীণফোন এ সময়ে মূলধনি ব্যয় কমিয়ে এনেছে। প্রান্তিকটিতে তাদের বিনিয়োগের পরিমাণ ২৮০ কোটি টাকা, যা দ্বিতীয় প্রান্তিকে (এপ্রিল-জুন) ছিল ৫৬০ কোটি টাকা। আগের বছরের একই সময়ে এ ব্যয় ছিল ১৯০ কোটি টাকা।

রবি আজিয়াটার চিফ করপোরেট অ্যান্ড রেগুলেটরি অফিসার সাহেদ আলম বলেন, ‘প্রবৃদ্ধি সন্তোষজনক হলেও বড় অংকের মূলধনি বিনিয়োগের ফলে মুনাফার হার আশানুরূপ হচ্ছে না। টেকসই মূলধনি বিনিয়োগের কারণে হাই ডেপ্রিসিয়েশন ও অ্যামোর্টাইজেশন ব্যয় মুনাফার পরিমাণ সীমিত করে দিচ্ছে। তবে দীর্ঘমেয়াদে টেকসই মুনাফা অর্জন নিশ্চিত করতে এ কর্মকৌশলের কোনো বিকল্প নেই। জুলাই-সেপ্টেম্বর প্রান্তিকে বিনিয়োগ হয়েছে ৫৫৫ দশমিক ৫ কোটি টাকা। ডলারের মূল্যবৃদ্ধি মূলধনি যন্ত্রপাতি আমদানির ব্যয়ে দীর্ঘসূত্রতা বাড়াচ্ছে।’

নিজেদের অর্ধেকের বেশি গ্রাহককে ফোরজি সেবার আওতায় নিয়ে এসেছে রবি আজিয়াটা। প্রতিষ্ঠানটির সূত্রে জানা গিয়েছে, চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্তিক শেষে রবির গ্রাহক সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫ কোটি ৪৪ লাখে, যার মধ্যে ফোরজি গ্রাহক সংখ্যা ২ কোটি ৭৬ লাখ। রবির গ্রাহকদের মধ্যে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর হার ৭৫ দশমিক ৫ শতাংশ। এসব গ্রাহকের ৬৭ দশমিক ৩ শতাংশ ফোরজি প্রযুক্তির সেবাগ্রহীতা। ১৫ হাজার ২১৯টি ফোরজি সাইটের (টাওয়ার) মাধ্যমে দেশের জনসংখ্যার ৯৮ দশমিক ২ শতাংশ রবির ফোরজি সেবার আওতায় এসেছে। এ বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে রবির প্রত্যেক ইন্টারনেট ব্যবহারকারী গড়ে ৫ দশমিক ৭ জিবি ডাটা ব্যবহার করেছে।

ডলারের মূল্যবৃদ্ধিতে আমদানি ব্যয় কমিয়ে আনা প্রয়োজন বলে মনে করেন বাংলালিংকের চিফ করপোরেট অ্যান্ড রেগুলেটরি অ্যাফেয়ার্স অফিসার তাইমুর রহমান। তিনি বলেন, ‘নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ ও সেবার মান বৃদ্ধির জন্য আমরা বিপুল পরিমাণে বিনিয়োগ করে যাচ্ছি। ভিওন প্রকাশিত সর্বশেষ প্রান্তিকের ফলাফল অনুযায়ী, এ বছরের তৃতীয় প্রান্তিকেও ৪৮০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করা হয়েছে। ডলারের মূল্যবৃদ্ধি আমাদের বিনিয়োগকে অনেকটা প্রভাবিত করছে। এমন পরিস্থিতিতে মোবাইল অপারেটরদের অ্যাকটিভ নেটওয়ার্ক শেয়ারিং একটি কার্যকর পদক্ষেপ হতে পারে। এ পদক্ষেপের মাধ্যমে আমদানি কমিয়ে ডলারের খরচ অনেকাংশে কমানো সম্ভব। এতে গ্রাহকও সারা দেশে আরো ভালো নেটওয়ার্ক কাভারেজ পাবে।’

এমন আরো সংবাদ

Back to top button