অর্থনীতিহাইলাইটস

আইএমএফ-এর ঋণ পেতে বাংলাদেশকে যেসব শর্ত মানতে হতে পারে

885বাজেট সহায়তা বাবদ প্রত্যাশিত ঋণ পেতে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ)-এর দেওয়া শর্ত পরিপালনে বাংলাদেশের তেমন সমস্যা হবে না বলে মনে করেন অর্থনীতিবিদরা। তারা বলছেন, শর্তগুলো পুরনো। এগুলো বাস্তবায়নে আগে থেকেই সরকার আন্তরিক। তবে এর পাশাপাশি সরকারকে রিজার্ভ বাড়ানোর পরামর্শ দিয়েছেন অর্থনীতিবিদরা। সূত্র জানিয়েছে, আইএমএফ-এর ঋণ পেতে বাংলাদেশকে শর্ত হিসেবে অর্থনীতিতে কিছু সংস্কারের পরামর্শ দেওয়া হতে পারে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে— রাজস্ব খাতে অটোমেশন চালু, আর্থিক খাতে ঋণ ও আমানতের সুদের হারের ওপর আরোপিত ক্যাপ তুলে নেওয়া, জ্বালানি তেলের মূল্য সমন্বয়ে একটি ফর্মুলায় এনে তা ঘোষণা করা, সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচিকে বাজেট থেকে আলাদা করা এবং কৃষিতে ভর্তুকির পরিমাণ কমানো। তবে এসব শর্ত ও সংস্কার সরকার নিজে থেকেই করছে বলে দাতা সংস্থা নতুন করে আর সমস্যায় ফেলবে না বলেও জানায় সূত্র।

২০২২ সালে করোনার দাপট কমে এলেও ইউক্রেন-রাশিয়ার যুদ্ধের কারণে অস্থিতিশীল হয়ে ওঠে বিশ্ব অর্থনীতি। যার প্রভাব পড়ে দেশের অর্থনীতিতেও। এতে ডলার সংকটের পাশাপাশি বাড়ে আমদানি ব্যয়। কমতে থাকে রিজার্ভ। গত ২০ জুলাই যা ৩৯ দশমিক ৪৯ বিলিয়ন ডলারে দাঁড়িয়েছে। জুলাইতে বাড়লেও তার আগের কয়েক মাস প্রবাসী আয়ের প্রবাহ কমেছে। সব মিলিয়ে লেনদেনের ভারসাম্যে নেতিবাচক অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে।

মুদ্রা বাজারে স্থিতিশীলতা, রিজার্ভের মজুত চাঙ্গা করা এবং বাজেট ঘাটতি মেটাতে আন্তর্জাতিক ঋণদাতা সংস্থাগুলোর কাছ থেকে ঋণ গ্রহণে সরকারের পক্ষ থেকে আবেদন করা হয়েছে বলে জানা গেছে। যা গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। বৈশ্বিক পরিস্থিতিতে দেশের আর্থিক পরিবেশ কিছুটা সংকটে বলে এটা মোকাবিলায় আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর কাছ থেকে ঋণ নেওয়া উচিত বলে মনে করেন অর্থনীতিবিদরা। এতে কোনও জটিলতাও দেখছেন না বলে জানিয়েছেন তারা।

এমন আরো সংবাদ

Back to top button